অবাদ সুষ্ট নির্বাচনের দাবীতে রফিকুল’র সংবাদ সম্মেলন

0 ৬৭

স্টাফ রিপোর্টার: ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার ৬নং ইউনিয়নের মোটরসাইকেল প্রতীকের স্বতন্ত্র পদ- প্রার্থী রফিকুল ইসলাম গতকাল (২৬ নভেম্বর) শুক্রবার রাতে বালিয়াডাঙ্গী প্রেসক্লাবে ইলেকট্রনিক্স ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকদের নিয়ে অবাত, সুষ্ঠ-স্বাভাবিক ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের দাবীতে সাংবাদিক সম্মেলন করেছে। ৬নং ভানোর ইউনিয়ন’র স্বতন্ত্র প্রার্থী রফিকুল ইসলাম তার লিখিত বক্তব্যে সাংবাদিকদের জানান, আগামী (২৮ নভেম্বর) রবিবার বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার ভানোর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। আমি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মোটরসাইকেল প্রতীকে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা করছি।

আপনারা জানেন যে, আমি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ৬নং ইউনিয়নের দুই বারের মেয়াদে সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করে আসছি। আমি বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা আওয়ামী লীগ দলীয় মনোনয়নপত্র গ্রহণ এর পর জননেত্রী শেখ হাসিনার নিকট মনোনয়ন চেয়েছিলাম। কিন্তু আমার ইউনিয়নে ব্যাপক জনপ্রিয়তা দেখে প্রার্থীকে মনোনয়ন না দেওয়ায় এলাকার ভোটারদের বিশেষ অনুরোধে আমি হয়েছি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনে অংশ নিতে। অত্যান্ত দুঃখের সহিত জানাচ্ছি যে, আমার প্রতিদ্বন্দ্বী নৌকা প্রতীকের প্রার্থী  আব্দুল ওয়াহাব সরকার ও তার লোকজন জনসভায় প্রকাশ্যে ও মোবাইলে আমার মোটরসাইকেল প্রতীকের কর্মী-সমর্থকদের বিভিন্ন ধরনের হুমকি প্রদান করছে।

২৮ নভেম্বর নির্বাচনের দিন ভোটকেন্দ্রে গেলে দেখে নেওয়ার হুমকি দিয়েছে। হুমকির কারণে সমর্থকদের মনোবল ভাঙতে না পারলেও ইতোমধ্যে ভোটারদের মনে ভয়-ভীতি সঞ্চার করেছে। আমি আশংকা করছি যে, নৌকা প্রতীকের প্রার্থী জনাব আব্দুল ওয়াহাব সরকার ও তার লোকজন নির্বাচনের দিন ১,২ ও ৩ নং ওয়ার্ডের ভোটকেন্দ্রে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করবে। তারা লাঠি-সোটা নিয়ে কেন্দ্র দখল করবে, নিজেরাই অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটিয়ে উক্ত ঘটনার দায়ভার আমার নেতাকর্মীদের উপর মিথ্যাভাবে চাপাতে পাবে। এ অবস্থায় ভোটারদের নিরাপত্তার স্বার্থে আমার নির্বাচনী এলাকার ওই ৩টি কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্র হিসেবে চিহ্নিত করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, র্যাব, পুলিশ ও বিজিবি মোতায়ন সহ অতিরিক্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়নের দাবী জানাচ্ছি।

তিনি আরো উল্লেখ্য করে বলেন, গত (২৫ নভেম্বর) গভীর রাতে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আব্দুল ওয়াহাব সরকারের কলন্দা ভোপালের হাটে নির্বাচনী প্রচারণা অফিসের বেরার কাপড় কে বা কাহারা আগুন ধরিয়ে দিয়েছে,উক্ত ঘটনার দায়ভার আমার কর্মীদের উপর চাপানোর চেষ্টা চলছে। আজ শুক্রবার ও আগামীকাল শনিবার আরও এমন বিশৃংখল ঘটনা ঘটিয়ে আমাদের উপর দায় চাপাবে বলে আশংকা করছি। রফিকুল ইসলাম বলেন, আমি আশা করছি আগামী (২৮ নভেম্বর) রবিবার দিনভর একটি সুষ্ঠ, অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য। সকল গণমাধ্যমের সাংবাদিক ভাইয়েরা আমার পাশে থাকবে, সুষ্ঠ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হলে বিপুল ভোটে মোটরসাইকেল প্রতিকে ভোট পেয়ে আমি নির্বাচিত হবো ইনশাআল্লাহ।

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!