আশুলিয়ার আলোচিত মামলা অটোরিকশা চালক মিন্টু হত্যার প্রধান আসামী গ্রেফতার

0 ১২৭

গোলাম সারওয়ার সজলঃ সাভারের আশুলিয়ায় অটোরিকশা চালক মিন্টু শেখ হত্যার রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।অটো রিকশার ব্যাটারি ছিনতাইয়ে ব্যর্থ হয়ে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয় মিন্টুকে।এ ঘটনায় আলী হায়দার নাহিদ (২৭) নামের এক ছিনতাইকারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।শুক্রবার (২০ নভেম্বর) দুপুরে সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার মো.খোরশেদ আলম। এর আগে বৃহস্পতিবার (১৯ নভেম্বর) পুলিশ পরিদর্শক (নিরস্ত্র) মো. রাশিদুল ইসলামের নেতৃত্বে সাভারের জামসিং এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার আলী হায়দার নাহিদ সাভারের জামসিং এলাকার ইবনে মিজান আল মামুনের ছেলে।সে অটোরিকশার ব্যাটারি ছিনতাই চক্রের দলনেতা ছিল বলে জানা গেছে।সংবাদ বিজ্ঞপ্তির তথ্য মতে,নাহিদ দীর্ঘদিন ধরে ওই এলাকায় অটোরিকশার ব্যাটারি ছিনতাই করে দেশের বিভিন্ন এলাকায় বিক্রি করে আসছিলো।গত ১৩ জুলাই গ্রেফতার নাহিদ ও তার দুই সহযোগী মেম্বরের মোড় ও মোল্লা টাওয়ারের মাঝামাঝি এলাকায় গেরুয়া যাওয়ার জন্য একটি অটোরিকশা ১৭০ টাকায় ভাড়া করে রওনা দেয়।তাদের উদ্দেশ্য হলো অন্ধকার নির্জন জায়গায় ব্যাটারি ছিনতাই।যাওয়ার পথে রাস্তা খারাপ থাকায় রিকশাচালক মোকামটেক দিয়ে যায়।

এই সড়কের গলি অত্যাধিক অন্ধকার থাকায় রিকশাচালক যেতে নারাজ হয়। সে রিকশা থামিয়ে ভাড়া দিতে বলে।তারা ভাড়া না দেওয়ায় রিকশাচালক চিৎকার চেঁচামেচি করে।এতে ক্ষিপ্ত হয়ে দলনেতা নাহিদ তার সুইচ গিয়ার চাকু দিয়ে পেটে ও গলায় পরপর কয়েকটি আঘাত করে।পরে স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে জাহাঙ্গীরনগরের প্রাচীরের নিচ দিয়ে ঝাউবনে পালিয়ে যায়।এসময় তার স্যান্ডেল ঘটনাস্থলে ফেলে যায়।পুলিশ ব্যুরো ইনভেস্টিগেশনের ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার মো.খোরশেদ আলম জানান,হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত সুইচ গিয়ার চাকুটি পাশের জলাশয়ে ফেলে দেয় নাহিদ।গ্রেফতার নাহিদের স্বীকারোক্তি ও তার দেখানো স্থান হতে তার স্যান্ডেল ও সুইচ গিয়ার চাকু উদ্ধার করা হয়েছে।প্রসঙ্গত, গত ১৩ জুলাই সোমবার গভীর রাতে সাভারের জামসিং জাহাঙ্গীরনগর হাউজিং এলাকায় মিন্টু শেখ (৩৫) নামের ওই রিকশা চালককে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায় ছিনতাইকারীরা।নিহত মিন্টু শেখ নড়াইল জেলার লোহাগড়া থানার পানপাড়া গ্রামের সোলেমান মিয়ার ছেলে।তিনি সাভার পৌর এলাকার ছায়াবীথি মহল্লার একটি ভাড়া বাড়িতে থাকতেন।

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published.