জাফলংয়ে ৩ বছরে জবরদখলকৃত ১৪০ একর বনভূমি উদ্ধার

0 ১৪৪

গোয়াইনঘাট প্রতিনিধিঃ সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার জাফলং রিজার্ভ ফরেস্ট এলাকায় অভিযান চালিয়ে জাফলং বন বিট।

৬মার্চ ২০১৮ ইং তারিখ সিলেট বন বিভাগের, সারী রেঞ্জের জাফলং বিটের রহমতপুর এলাকার জবরদখল কৃত সংরক্ষিত বনভূমিতে, অবৈধ স্থাপিত ১৭ টি ক্রাশার মেশিন ও ২৭ টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অপসারণ করে। তৎকালীন সিলেটের ডিএফও আর,এস,এম মুনিরুল ইসলাম পরিচালক পরিবেশ অধিদপ্তর সিলেট, নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট গোয়াইনঘাট সুমন চন্দ্র দাস’র নেতৃত্বে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়।

এরই ধারাবাহিকতায় ১৮ আগষ্ট ২০২১ সিলেটের জাফলংয়ে বন বিভাগ এলাকায় টাস্কফোর্সের অভিযান পরিচালনা করা হয়। ১৮আগষ্ট বুধবার দিনভর সিলেট জেলা সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আফসানা তাসলিম’র নেতৃত্বে,জাফলং গ্রীণপার্ক সংলগ্ন সোনাটিলা নামক এলাকায় অভিযান চালিয়ে ভূমি দখল করে গড়ে তোলা ৫টি টিনের তৈরি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে। ওই এলাকায় বসানো ছোট-বড় অবৈধ ড্রাম্পিং ইয়ার্ড ধ্বংস ও বনাঞ্চলের অভ্যন্তরে ডাম্পিং করে রাখা প্রায় ২০০ ঘনফুট পাথর জব্দ করাসহ, ২৫একর ভূমি দখল মুক্ত করে বনায়ন করা হয়। অভিযান পরিচালনাকারী সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আফসানা তাসলিম জানান, বন বিভাগের আবেদনের প্রেক্ষিতে তাদের জায়গা থেকে অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ করতে এই অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানের সময় বন ও পরিবেশ বিনষ্ট করে ব্যবসা পরিচালনাকারী পাথর ব্যবসায়ীদের কঠোরভাবে সতর্ক করে দেয়া হয়েছে এবং, বন ও পরিবেশ রক্ষায় জনস্বার্থে জেলা প্রশাসনের এ ধরনের অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি। এসময় গোয়াইনঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার তাহমিলুর রহমান, গোয়াইনঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ পরিমল চন্দ্র দেব, পুর্ব জাফলং ইউপি চেয়ারম্যন বীর মুক্তিযোদ্ধা লুৎফর রহমান লেবু, সিলেট জেলা সহকারী বন সংরক্ষক আবু বক্কর সিদ্দিক, হবিগঞ্জ জেলা সহকারী বন সংরক্ষক মারুফ হোসেন, সুনামগঞ্জ জেলা সহকারী বন সংরক্ষক অরুন বরুন চৌধুরী, সারী রেঞ্জ কর্মকর্তা মো. সাদ উদ্দিনসহ পুলিশ,ও বন বিভাগের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

২০১৯-২০২০-২০২১ আর্থিক সালে প্রায় ১৪০.০ একর বনভূমি জবরদখল মুক্ত করা হয় এবং সকল জায়গায় নতুন করে ৯০ হাজার চারার বাগান সৃজন করা হয়।

জাফলংয়ের কানাইজুড়ি ও রহমতপুর সোনাটিলা এলাকার সংরক্ষিত বনভূমি উদ্ধার কালে গোয়াইনঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার, জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট,বন বিভাগের সহকারী বন সংরক্ষকসহ গোয়াইনঘাট থানার অসংখ্য পুলিশ অভিযানে অংশ নেন। ১৪০.০ একর ভূমি উদ্ধার করেছে বন বিভাগ, যা দীর্ঘদিন ধরে বেদখল ছিল।
অভিযান পরিচালনাকালীন স্থানীয় প্রশাসনের সহযোগিতায় এবং বনবিভাগের বিভিন্ন অবৈধ পাথর ড্রাম্পিং ইয়ার্ডসহ ক্রাশার মেশিনে এই অভিযান চালায়।

বনবিভাগ সূত্রে জানা যায়, অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ করতে ২০২০ সালে তারা একটি চিঠি জেলা প্রশাসককে পাঠায়। সেই চিঠির সূত্রে জানা যায়, তখন বনবিভাগ এই ভূমির বিপরীতে ২০১৬-১৭ সালে প্রায় ৩ কোটি টাকা করও পরিশোধ করে। কিন্তু বেশ কয়েকটি চক্র বনবিভাগের কিছু অসাধু কর্মকর্তাদের যোগসাজশে জাফলং বনের ভেতর দখল কার্যক্রম চালাতে থাকে, তারা বিভিন্ন সময়ে বনবিভাগের বাগান নষ্ট করে জায়গা দখলে নেয়।

জেলা প্রশাসককে চিঠি দেয়ার পর এতদিন অবৈধ দখলদারদের নানা কারণে উচ্ছেদ করা যায়নি। অবশেষে ১৮ আগষ্ট ২০২১ সকাল থেকে স্থানীয় প্রশাসনের সহযোগিতায় এবং বনবিভাগের বিভিন্ন উর্ধতন কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে অভিযান পরিচালনা করা হয়।

অভিযান পরিচালনাকারী ম্যজিস্ট্রেট দৈনিক সিলেটের দিনকালকে জানান , সকাল থেকে আমরা অভিযান পরিচালনা করি এবং ৪টার ভেতরে অভিযান শেষ হয়।

সিলেট বিভাগীয় বন কর্মকর্তা জানান, দীর্ঘদিন যাবৎ তারা এই জায়গা দখল করে রেখেছিল। কোভিড সহ নানা কারণে আমরা অভিযান চালাতে পারিনি। গত ১৮আগষ্ট ২০২১ সালের বুধবার দিনভর জাফলং বনবিভাগ এলাকায় অভিযান চালিয়ে আরো ২৫ একর জমি উদ্ধার করেছি।

এরা বন দখল করে ঘর বাড়িসহ অবৈধ স্থাপনা বানিয়েছে। সেই সাথে আমাদের একটি বাগান ধ্বংস করে ফেলছে। এই জমি উদ্ধার করতে গিয়ে বনবিভাগের কর্মীরা অনেক সময় হামলার শিকার হয়েছিল। তাই এবার আমরা সচেতন ছিলাম এবং সেভাবে প্রস্তুতি নেয়া হয়।

এ বিষয়ে সিলেট বিভাগীয় কর্মকর্তা তৌফিকুল ইসলাম, জানিয়েছেন বনের জায়গা উদ্ধার করতে এই ধরনের অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানান।

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!