সন্দ্বীপে ছুড়িকাঘাতে হত্যা চেষ্টায় আহত হওয়া পলির৷ জ্ঞান ফিরেছে।

0 ৮৭৫,৫০৩

চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ উপজেলার সন্তোষপুরে ভাসুরপুত্র কর্তৃক গলায় ছুড়িকাঘাতে হত্যা চেষ্টায় আহত হওয়া পলি বেগমের জ্ঞান ফিরেছে।গতকাল সোমবার(২০ মে)সকালে রাজধানীর জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে অস্ত্রপাচার হয়।অস্ত্রপাচার সফল হলে পরবর্তী পর্যবেক্ষনের জন্য নেওয়া হয় আইসিইউতে।

আহত পলির সাথে থাকা তার চাচাতো ভাই জানান,জ্ঞান ফিরেছে পলির।কিন্তু এখনো আমার বোনের অবস্থা তেমন ভালো নেই।আমরা এর বিচার চাই।আসামির যাতে দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবি করছি।

আহতের সাথে থাকা স্থানীয় সেলিম মেম্বারের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন,গতকাল সোমবার(২০ মে) রাত ১০ টার পর আইসিইউতে থাকা অবস্থায় চোখ খুলেছেন আহত পলি বেগম।

উল্লেখ্য,চট্টগ্রামের সন্দ্বীপে রবিবার(১৯ মে)সকাল সাড়ে ১০টায় উপজেলার সন্তোষপুর ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডে এই ঘটনা ঘটে।আহত গৃহবধূ পলি বেগম(২৫)বর্তমানে ঢাকার জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে(আইসিইউতে)চিকিৎসাধীন আছে।

ঘটনার পর তাকে উদ্ধার করে সন্দ্বীপের গাছুয়া সরকারি হাসপাতালে নিয়ে যায়।সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ(চমেক)হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। এরপর গত শনিবার(১৯ মে)রাত ১০ টার দিকে একটি অ্যাম্বুলেন্স যোগে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ(চমেক)থেকে ঢাকায় জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়,পলি বেগমকে তার ভাসুরের ছেলে ফরহাদ গত দুই বছর ধরে বিভিন্ন অশ্লীল অঙ্গভঙ্গিসহ বিভিন্ন কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিল। রবিবার সকালে বৃষ্টির সময় একা থাকার সুযোগ পেয়ে পুনরায় কুপ্রস্তাব দেয়।তার প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় ফরহাদ তার চাচি পলিকে ধারালো ছুড়ি দিয়ে গলায় ছুড়িকাঘাত করে।

আহত পলি বেগম সন্তোষপুর ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের নুর মিয়া পাটোয়ারি বাড়ির প্রবাসী রিপনের স্ত্রী।তার দুটি সন্তান রয়েছে।ফরহাদ তার ভাসুর বেলালের ছেলে।

এই ঘটনায় পলি বেগমের মা নিলুফা বেগম(৫৭)বাদী হয়ে সন্দ্বীপ থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। সন্দ্বীপ থানার পুলিশ স্থানীয় জনতার সহায়তায় রবিবার বিকেলে গাছুয়া ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ড থেকে অভিযুক্ত ফরহাদকে গ্রেপ্তার করেছে।আদালতে ১৬৪ধারায় স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি দিয়েছে আসামি ফরহাদ।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এস আই আনিছুর রহমান জানান,ঘটনার পর পরই গাছুয়া ইউনিয়নের জনগণের সহায়তায় আমরা ফরহাদকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হই।আসামিকে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

সন্দ্বীপ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি)কবির হোসেন বলেন,এটি একটি মর্মান্তিক ঘটনা।ঘটনার খবর পাওয়ার সাথে সাথে আমরা ভিকটিমকে সহায়তা করাসহ পলাতক আসামি ফরহাদকে গ্রেপ্তারে অভিযান চালাই।পরে তাকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হই।

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!