সন্দ্বীপে স্ত্রীর পরকীয়া লিপ্ত সন্দেহে স্ত্রীকে শ্বাসরোধে হত্যা।

0 ৮৭৫,৮৫০

চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ উপজেলার সারিকাইত ইউনিয়নের চৌকাতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন বেড়ীবাঁধের ধারে ছোট বসত ঘরে বসবাস করতেন সমর জলদাস(৩৩) ও মনিকা জলদাস(২৩)।ঠিকঠাক চলছিলো সংসার।হঠাৎ করে আঘাত আনলো পরকীয়া নামের সন্দেহ।

স্বামী সমর জলদাস সন্দেহ করলেন স্ত্রী মনিকা জলদাসের সাথে পার্শ্ববর্তী ঘরের বেচন জলদাস(৩৩)এর পরকীয়া চলছে।এই পরকীয়া সন্দেহ সমর জলদাস তার স্ত্রী মনিকা জলদাসকে শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যা করেন।আর ঘটনাটি ঘটে ২০শে এপ্রিল সন্দ্বীপ সারিকাইত ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডে।পরবর্তীতে স্বামী সমর জলদাস আত্নগোপনে চলে যায়।

উক্ত ঘটনায় ভিকটিমের মা অনিমা বালা জলদাস বাদী হয়ে সন্দ্বীপ থানায় সূত্রোক্ত মামলাটি রুজু করলে তদন্তভার দেওয়া হয় এসআই মাঈন উদ্দিন ভূঁইয়ার উপর।

মামলা রুজুর পর চট্টগ্রাম জেলার মাননীয় পুলিশ সুপার এস.এম.শফিউল্ল্যাহ বিপিএম,পিপিএম এর তত্ত্বাবধানে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(ক্রাইম)আসাদুজ্জামানেট দিকনিদের্শনা মোতাবেক সন্দ্বীপ থানার অফিসার ইনচার্জ কবির হোসেন পিপিএম এর নেতৃত্বে পুলিশ টিম গঠন করে বিজ্ঞান ভিত্তিক তদন্তের মাধ্যমে ঘটনায় সম্পৃক্ত আসামী সমর জলদাসকে গ্রেফতার করতে সন্দ্বীপ থানা এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে গত ২২শে এপ্রিল রাত ৩টার সময় গুপ্তছড়া এলাকা থেকে আসামী সমর জলদাসকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।

আদালতের মাধ্যমে আসামীকে এক দিনের রিমান্ডে এনে নিবিড়ভাবে জিজ্ঞাসাবাদে আসামী সমর জলদাস তার স্ত্রী মনিকা জলদাস পরকীয়ার লিপ্ত ছিলো দাবী করে মনিকা জলদাসকে ঘটনার তারিখ ও সময়ে সমর জলদাস তার বসত ঘরে স্ত্রী মনিকা জলদাসকে মারধর ও শ্বাসরোধ করে হত্যা করার কথা স্বীকার করে।

সমর জলদাস সন্দ্বীপ চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মুহাম্মদ বেলাল হোছাইনের সন্দ্বীপ চৌকি আদালতে নিজের দোষ স্বীকার করে স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে বলে জবানবন্দি দেয়।

এবিষয়ে সন্দ্বীপ থানার অফিসার ইনচার্জ কবির হোসেন পিপিএম বলেন,মামলা হওয়ার পর থেকে আমাদের যা যা করার দরকার আমরা করেছি।আসামি গ্রেফতার করে আদালত থেকে রিমান্ডে আনার স্বীকারোক্তি জবানবন্দি দেয়।আসামীকে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে বলে নিশ্চিত করেন তিনি।

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!