0 ১৩৬

রাজশাহী মহানগর মেট্রোপলিটন পুলিশের বিভিন্ন পর্যায়ে বড় ধরনের রদবদল করা হয়েছে।সোমবার রাতে আরএমপির বিভিন্ন থানা ফাঁড়িতে কর্মরত উপ-পরিদর্শক, সহকারী উপ-পরিদর্শক ও কনস্টেবল পদের ২১৮ জনকে একাধিক আদেশে বদলি করা হয়েছে।আরএমপির এক থানা ও ফাঁড়ি থেকে আরেক থানা ফাঁড়িতে তাদের বদলি করা হয়।এই প্রক্রিয়ায় শতাধিক কনস্টেবলকেও বদলির বিষয় প্রক্রিয়াধীন বলে আরএমপির একটি সূত্র নিশ্চিত করেছেন।

জানা গেছে,সাম্প্রতিক সময়ে আরএমপির বিভিন্ন থানার কতিপয় পুলিশ কর্মকর্তা নারীঘটিত নানান ঘটনায় জড়িয়ে পড়াসহ তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনৈতিক কার্যকলাপ সংক্রান্ত গুরুতর অভিযোগ উঠে।একটি অভ্যন্তরীণ তদন্তেও সম্প্রতি বিষয়টি উঠে আসে।আর এর ফলে গণবদলির এ ঘটনা ঘটল।তবে আরএমপিতে এই গণবদলি প্রসঙ্গে রাজশাহী মহানগর পুলিশ(আরএমপি)কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক এটিকে রুটিন কাজ বলেছেন।

তিনি আরও বলেন,এ বদলিতে আরএমপিতে পুলিশি কার্যক্রমে গতিশীলতা আরও বাড়াবে।বদলিকৃতদের এক থানা থেকে আরেক থানায় দেওয়া হয়েছে।এটি রুটিন ও স্বাভাবিক কাজ।বদলির তালিকা বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে,আরএমপির সবচেয়ে বড় ও ব্যস্ততম বোয়ালিয়া মডেল থানার ১৩ জন এসআই ও ১০ জন এএসআইসহ মোট ২৩ জনকে একযোগে বদলি করা হয়েছে।তাদের অধিকাংশকেই দামকুড়া ও কর্ণহার থানায় বদলি করা হয়েছে।রাজপাড়া থানার মোট ১৭ জনকে বদলি করা হয়েছে।এই ১৭ জনের মধ্যে ১১ জন এএসআই ও ৬ জন এসআই রয়েছেন।

লক্ষ্মীপুর পুলিশ বক্সের ইনচার্জ মাহবুবকে বদলি করা হয়েছে বায়া পুলিশ ফাঁড়িতে।এদিকে মতিহার থানার ১০ জন এসআই ও ৮ জন এএসআইসহ মোট ১৮ জনকে বদলি করা হয়েছে।আরএমপির কাশিয়াডাঙ্গা, দামকুড়া,বেলপুকুর,কাটাখালী,পবা,কর্ণহার থানাসহ অন্যান্য থানা ও ফাঁড়ির পুলিশ কর্মকর্তাদেরও বদলি করা হয়েছে।সূত্রগুলো থেকে জানা গেছে,অনৈতিক কাজের বিস্তর অভিযোগ থাকলেও বোয়ালিয়া থানার এএসআই মজনুকে রাজপাড়া থানায় বদলি করা হয়েছে।ফলে রাজপাড়া থানায় কর্মরতরা বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছেন।

আরএমপির একটি সূত্র জানিয়েছেন,গত ৯ ডিসেম্বর বোয়ালিয়া থানার মালোপাড়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই ইফতেখার আল আমিনের লিঙ্গ কর্তন করেন তার স্ত্রী রূপসী দেওয়ান।অভিযোগ উঠে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়ায় স্ত্রী প্রতিশোধ নেন স্বামীর লিঙ্গ কর্তন করে।সূত্রমতে,এ ঘটনাটি রাজশাহী মহানগর পুলিশে তোলপাড় হয়।কমিশনার ঘটনার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ দেন।সম্প্রতি পুলিশ কর্মকর্তার লিঙ্গ কর্তনের অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার তদন্ত করতে গিয়ে বেরিয়ে আসে আরএমপির বিভিন্ন থানা পর্যায়ে কর্মরত অনেক পুলিশ কর্মকর্তার অনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়ার অনেক খবরও।কারো বিরুদ্ধে পরকীয়ায় জড়ানোর অভিযোগ যেমন রয়েছে তেমনি কয়েকজন নারী পুলিশ সদস্যের ওপর পীড়নের খবরও বেরিয়ে আসে।কারো কারো বিরুদ্ধে মাদক গ্রহণের গুরুতর অভিযোগও উঠেছে।

এসব অনৈতিক কর্মকাণ্ড থেকে তাদের বিরত রাখতে পুলিশে শুদ্ধি অভিযান তথা গণবদলির ঘটনা ঘটেছে।তবে এসব বিষয় নিয়ে কোনো কর্মকর্তাই কথা বলতে রাজি হননি।অন্যদিকে আরএমপিতে একযোগে ২১৮ জন পুলিশ কর্মকর্তার বদলির বিষয়টি মঙ্গলবার সারাদিন রশাহীতে টক অব দ্য সিটি হয়ে উঠে।

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!